s

 

 

About DIMFF

 

Dhaka International Mobile Film Festival (DIMFF) has been started in 2015 as Cinemascope Mobile Film Competition (CMFC). The festival upholds and promotes the motto 'New Generation, New Tools, New Communication'. The festival is free of entry. Competition category is restricted to university students in Under Graduate or Graduate level and One Minute Film category is restricted to Grade 1 - 12 students. Films for this festival must be shot in a mobile phone (cell-phone/smart phone). However, there is no restriction regarding brand, model and operating system of the phone as well as post-production tools.

The objective of the DIMFF is to involve young minds from anywhere in the world to take part in this festival. This would not only expose Bangladeshi talent to the world but also bring world competitor for our promising filmmakers. The picture of film making in Bangladesh is reviving and slowly taking good shape with many of our young talents being appreciated in global awarding ceremonies. Filmmaking is a very strong platform, which may help to boost the image of our country.

The festival is organized by CinemaScope which is a film apprenticeship program of University of Liberal Arts Bangladesh (ULAB).

CinemaScope aims to contribute in community development by reading, analyzing, and making films. A group of ULAB students join in Cinemascope and organize event and activities to develop the film sense of its members and community. CinePedia is the mouthpiece of CinemaScope, published once in a semester.

ULAB is a private institution devoted to developing young minds to their fullest potential through the free and creative pursuit of knowledge. ULAB fulfill these aims by adopting an array of traditional and innovative academic and co-curricular programs.

Team Organizers

Rules & Regulations


Screening Category

Any one from any region can submit films shot in mobile phone. Selected films will screen in festival.

Competition Category

Only university student of Under Graduate or Graduate level can participate in this competition section. Selected films will be screened in Dhaka International Mobile Film Festival and best film will get CINEMASCOPE BEST FILM award.

One Minute Category

Only grade 1-12 student can participate in this competition section. Selected films will be screened in Dhaka International Mobile Film Festival and best film will get ULAB YOUNG FILM MAKER AWARD.


  • Director of the film can be single or group (maximum 4 persons).
  • Only director or a representative of the directors (for group) can submit his/her film.
  • For Competition category, participant must be a university student who has a student identity card valid at least till March 2019.
  • For One Minute Category, participant must be a grade 1to12 student who has a student identity card valid at least till March 2019.
  • Each participant can submit maximum 2 films.
  • Films screened and/or participated in other festivals and/or competitions are also welcome.
  • Films submitted in previous DIMFF will not be accepted.

  • Films must be shot in a mobile phone (cell-phone/Smart phone) for any category. There is no restriction regarding brand, model and operating system of the phone.
  • Multiple mobile phones can be used in shooting; however, usage of footage(s) shot by any other device(s) such as DSLR, compact cameras or hybrid android cameras will disqualify the film.
  • Use of additional equipment is allowed, including (but not limited to) external microphone, lenses, lighting tools and tripod.
  • All films must be submitted in MPEG4 (.mp4) format.
  • Use of Animation/VFX must not be more than 30% of total duration.
  • Any device or software may be used in post-production process such as editing video and audio, color-correction and special effects.
  • For Screening and Competition Category Maximum duration of the film must be within 10 minutes including title and credit line.
  • For One Minute Category Maximum duration of the film must be within 1minute including title and credit line.
  • English subtitle is mandatory and should be merged with the visual.
  • There is no restriction regarding theme/topic. All genres are welcome.
  • Use of any copyrighted materials is prohibited unless there is a written permission.
  • No nudity, profanity, extreme violence or racist content is allowed.
  • CinemaScope will preserve the right to archive, publish and use submitted materials for academic, commercial and non-commercial purpose.

Submission deadline is

September 16, 2018


Late submission will cost $20 (screening category), $10 (competition category)
& $5(One Minute Category).


No submission will be allowed after

October 14, 2018


  • Acceptance notification will be sent by email on December 30, 2018.
  • The judges may disqualify a film if they have reason to believe that it does not comply with the competition’s terms and conditions.
  • Finally selected films will be screened at ULAB Auditorium on February 15 & 16, 2019. DIMFF 2020 will be announced at the end of the event.
  • CinemaScope reserves the right to withdraw the awards at any time if there is a formal complaint regarding violation of intellectual property right or Screening, Competition & One Minute category rules.

Awards & Recognitions

CinemaScope Best Film

(Competition Category)
Cash Prize, Crest and Certificate

ULAB Young Film Maker

(One Minute Category)
Cash Prize, Crest and Certificate

Screening Category Selection

Certificate and Gift Box

Competition Category Selection

Certificate and Gift Box

One Minute Category Selection

Certificate and Gift Box

Submit Your Film

No entry fee is required.

Submission will be accepted via FilmFreeway only. Please use click the following link for film submission.

After primary selection you will be notified to submit the following documents:

  • Film Poster
  • Photograph and biography of the director(s).
  • Scanned copy of student identity card's both side (for Competition & One Minute category only).
  • Scanned copy of national identity card/passport.
  • Video of Making of the film-behind the scene.

Behind the scene must contain sufficient proof that your film was shot with a mobile phone.
Director should talk about advantages and disadvantages of the mobile phone used for filming in ‘Making of the Film’.
Duration of this video should be within 3 to 5 minutes.

Notice Board

Keep your eyes on our notice board to get recent updates on Dhaka International Mobile Film Festival 2019.

Hall of Fame

Festival Directors' Hub

Get in Touch

Do you still have a query? Feel free to ask your question. A DIMFF deligate will contact you back ASAP with your required information.

  • House: 56, Road: 4/A, Satmasjid Road, Dhanmondi
  • +88 (0177) 025 08 91
  • festival.director@dimff.net

Masterclass on Mobile Filmmaking


Cinemascope, an apprenticeship programme of Media Studies and Journalism department, organised a workshop named “Masterclass on Mobile Filmmaking” at Campus B Seminar Room on 27 May. Dr Kabil Khan Jamil, a specialist of mobile journalism at the daily Prothom Alo, facilitated the session from 11:00am to 4:00pm.
Participants learned about the advantages of mobile journalism and mobile filmmaking. During the session, they also got an idea of using different types of mobile gadgets for recording interview, shooting films, and so forth.
Later, dividing into three groups, the participants produced some work with their mobile devices. The feedback from the mentor helped them learn from their mistakes.


ঢাকা আন্তর্জাতিক মোবাইল চলচ্চিত্র উৎসব-২০১৮
সেলফোন একদিন ‘কলম’ হবে


এমন একদিন আসবে, যেদিন চলচ্চিত্র নির্মাতারা ক্যামেরাকে ব্যবহার করবেন কলমের মতো। একজন সাহিত্যিক যেমন কলম দিয়ে উপন্যাস বা প্রবন্ধ রচনা করেন, তেমনি ক্যামেরা দিয়েও বিভিন্ন বিষয় রচনা করা স্বাভাবিক বিষয়ে পরিণত হবে— গত শতকের চল্লিশের দশকে বিখ্যাত ফরাসি চলচ্চিত্র সমালোচক ও পরিচালক আলেকজান্ডার আসট্রুকের করা এমন মন্তব্য যে আজকের সময়ে এসে সত্যিই হয়ে যাবে, তা কে জানত! প্রযুক্তির উত্কর্ষে এখন চলচ্চিত্রজগতের মানচিত্রটাই যেন বদলে গেছে। কেউ চাইলে তার হাতে থাকা সেলফোন দিয়েই বানিয়ে ফেলছেন পুরোদস্তুর একেকটি চলচ্চিত্র। বিশাল লগ্নি, দামি ক্যামেরা, সিনেপ্লেক্সে প্রদর্শনীর মতো বিষয় যুক্ত হয়ে রাজকীয় মাধ্যম হিসেবে সিনেমা এতকাল যে তকমা পেয়েছে, সে চিন্তাধারাকে আমূলে বদলে দিয়েছে সেলফোন। যারা সিনেমা নির্মাতা হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন, কোনো কিছুই যেন তাদের চলার পথে বাধা হয়ে না দাঁড়ায়, তাদেরকে উৎসাহিত করতে এ বছর প্রথমবারের মতো ঢাকা আন্তর্জাতিক মোবাইল চলচ্চিত্র উৎসব পালন করতে যাচ্ছে সিনেমাস্কোপ (সিনেমাস্কোপ, ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টসের ফিল্ম অ্যাপ্রেনটিস প্রোগ্রাম)। আজ বেলা ১১টায় ইউল্যাবের অডিটোরিয়ামে শুরু হবে দিনব্যাপী এ উৎসব। উল্লেখ্য, সেলফোনে তোলা ছবি নিয়ে ২০১৫ সালে প্রথমবারের প্রতিযোগিতার আয়োজন করে সিনেমাস্কোপ। যেখানে শুধু সিনেমাস্কোপের সদস্যদের বানানো ছবিই প্রতিযোগিতা করে। এর পরের বছর ইউল্যাবের শিক্ষার্থীরা এ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন। ২০১৭ সালে পৃথিবীর যেকোনো দেশের নির্মাতারা তাদের সেলফোনে তোলা ছবি নিয়ে এতে প্রতিযোগিতার সুযোগ পান। আর এবারই প্রথম আন্তর্জাতিক এ প্রতিযোগিতার পাশাপাশি উৎসবের আয়োজন করা হয়। এ বছর স্ক্রিনিং ও কম্পিটিশন— এ দুই ক্যাটাগরিতে ৩৫টি দেশ থেকে প্রদর্শনীর জন্য ৯৬টি এবং প্রতিযোগিতা বিভাগে ২০টি সিনেমা জমা পড়ে। যেখান থেকে বাছাই করে ১৫টি স্ক্রিনিং ও পাঁচটি কম্পিটিশন বিভাগে দেখানো হবে। এরপর বিচারকদের মূল্যায়নের ভিত্তিতে কম্পিটিশন বিভাগ থেকে একটি ছবি ও এর নির্মাতাকে পুরস্কৃত করা হবে।

ইউল্যাব সিনেমাস্কোপ আয়োজিত উৎসবটি শুরু থেকেই সফলতার স্বাক্ষর রেখে চলেছে। চার বছর ধরে চলা এ আয়োজনে সারা বিশ্ব থেকেও মিলছে অভূতপূর্ব সাড়া। বাংলাদেশের তরুণ নির্মাতাদের অনেকেই সেলফোনে সিনেমা বানাতে উৎসাহিত হচ্ছেন। তো কেমন আগামীর স্বপ্ন দেখছেন ঢাকা আন্তর্জাতিক মোবাইল ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের সঙ্গে যুক্তরা? এ নিয়ে কথা হয় এ উৎসবের আয়োজক কমিটির পরিচালক মীর ওয়াদুদ ইসলামের সঙ্গে। তার উত্তর: সারা পৃথিবীতে এ ধরনের আয়োজন কমই হয়। বাংলাদেশে আমরাই শুরু করি। মোবাইল ফিল্ম কম্পিটশনের গুরুত্ব দিন দিন সবাই উপলব্ধি করছে। আগামী ১০-১৫ বছরের মধ্যে সবার মাঝে এ ধারণা প্রতিষ্ঠিত হয়ে যাবে যে, দামি যন্ত্রপাতি না থাকলেও সমস্যা নেই, নিজের হাতে থাকা মোবাইল ফোন দিয়েই সিনেমা বানিয়ে ফেলা সম্ভব। এমনকি এভাবে সিনেমা বানানোটা স্বাভাবিক ঘটনায়ই পরিণত হবে।’ পরিপূর্ণ গণতন্ত্রায়ণ ঘটাতে পারলেই শিল্প সফল হয়। শিল্প হিসেবে সিনেমার গুরুত্বপূর্ণ অবস্থান থাকা সত্ত্বেও বিশেষ শ্রেণীর হাত থেকে এখনো পুরোপুরি বের হতে পারেনি মাধ্যমটি। যে কারণে সমাজের গল্প শতভাগ তুলে আনতেও ব্যর্থ হচ্ছে সিনেমা। ঠিক এ সমস্যার সমাধানেই সেলফোন অন্যতম প্রধান হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহূত হতে পারে— এমনটাই মনে করছেন আন্তর্জাতিক এ উৎসবের বিচারক, লেখক ও চলচ্চিত্র সমালোচক বিধান রিবেরু। তিনি বলেন, ‘আলেকজান্ডার আসট্রুকের ক্যামেরাস্টিলোর সেই ধারণার প্রতিফলন মোবাইল ফোনের মাধ্যমে পেয়ে গেছে বিশ্ব। ক্যামেরা এখন কলমে পরিণত হওয়ার পথে। যে কেউ চাইলেই তার ভাবনাকে চলচ্চিত্রে রূপ দিতে পারবে এ মোবাইল ফোনের মাধ্যমে। এর ফলে চলচ্চিত্রের গণতন্ত্রায়ণই ঘটল। অর্থ থাকলেই যে কেবল সিনেমা বানানো যাবে, এ ধারণাকে ভুল প্রমাণিত করছে এটি। মোবাইল ফোন জানান দিয়েছে, এখন আর ছবি বানানোর জন্য রেড ক্যামেরার দরকার নেই, এখন আর প্রদর্শনীর জন্য প্রেক্ষাগৃহে যাওয়ারও দরকার নেই। এখন সিনেমা বানানোর জন্য একটি মোবাইল ফোন ও প্রদর্শনীর জন্য একটি ইউটিউব চ্যানেলই যথেষ্ট।’ এ বছর ঢাকা আন্তর্জাতিক মোবাইল চলচ্চিত্র উৎসবের গণসংযোগ কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন ইশারা পারভীন। নিজেকে এ আয়োজনের সঙ্গে যুক্ত করার কারণ হিসেবে তার উত্তর: ‘গত বছর দেখেছি এখানে ভালো মানের ছবি জমা পড়েছে এবং অসংখ্য মানুষের সাড়া পেয়েছে প্রতিযোগিতাটি। তখন মনে হয়েছিল, আজ থেকে ১০ বছর পর এ মোবাইল ফিল্ম কম্পিটিশন একটা ভালো জায়গায় যাবে। আমি যেন তখন গর্বের সঙ্গে বলতে পারি, এর সঙ্গে যুক্ত ছিলাম; সেদিক বিবেচনায় নিয়ে আমি এর সঙ্গে যুক্ত হই।’

বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে স্ক্রিনিং বিভাগে জমা পড়া ৯৬টি ছবির মধ্যে ১৫ ও কম্পিটিশন বিভাগে জমা পড়া ২০টির মধ্যে পাঁচটি ছবিকে উৎসবের মূল আয়োজনে থাকার লড়াইয়ে বেশ হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করতে হয়েছে। প্রতিযোগিতার জন্য চলচ্চিত্র বাছাই করেছে তিনজন বিচারকের একটি বিচারক প্যানেল। বিচারক প্যানেলের মধ্যে আছেন চলচ্চিত্র নির্মাতা ও লেখক মতিন রহমান, পরিচালক ও প্রযোজক প্রসূন রহমান এবং লেখক ও চলচ্চিত্র সমালোচক বিধান রিবেরু। এ নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাতা ও লেখক মতিন রহমানের মন্তব্য এমন: ‘এতগুলো ছবির মধ্য থেকে মাত্র কয়েকটি বেছে নিতে আমাকে দীর্ঘ সময় ভাবতে হয়েছে, চট করেই কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারিনি। কারণ মোবাইল ফোনে নির্মিত হলেও বিষয় ও উপস্থাপনের দিক থেকে এসবের নির্মাতারা বেশ বুদ্ধিমত্তা ও দক্ষতার প্রমাণ দিয়েছেন। বাংলাদেশের নির্মাতাদের ছবিগুলোও বিশ্বের অন্যান্য দেশের ছবিগুলোর সঙ্গে সমানে সমানে লড়াই করেছে। কোনো অংশেই এ দেশের ছেলেমেয়েরা পিছিয়ে নেই।’ ঢাকা আন্তর্জাতিক মোবাইল ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ও এতে অংশগ্রহণকারীরা সব কথার শেষে একটা কথাই যেন বোঝাতে চাইলেন: ক্যামেরা একদিন কলমের মতো সহজলভ্য হবে, কোনো শর্ত ছাড়াই মানুষ যখন খুশি তখন সিনেমা বানিয়ে ফেলতে পারবে। তাই সিনেমার গণতন্ত্রায়ণ প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে এ রকম উৎসবই সবাইকে উৎসাহিত করতে পারে— এতে কোনো সন্দেহ নেই।
সূত্র:bonikbarta.net

মোবাইল চলচ্চিত্র উৎসবে সেরা ভারতের ‘ভিলাম্বল’


চতুর্থবারের মতো আয়োজিত ঢাকা আন্তর্জাতিক মোবাইল চলচ্চিত্র উৎসবে সেরা পুরস্কার জিতে নিলো ভারতের সেন্থামিঝান আরুনাচালামমাঞ্জুলা নির্মিত ‘ভিলাম্বল’ ছবিটি। ১৭ ফেব্রুয়ারি দুপুরে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশের (ইউল্যাব) মিলনায়তনে এ পুরস্কার ঘোষণা করা হয়। নির্মাতার পক্ষে পুরস্কার গ্রহণ করেন উৎসব পরিচালক মীর ওয়াদুদ ইসলাম। ২০১৭ সালে ভারতের তামিলনাড়ুতে ‘ভিলাম্বল’ চলচ্চিত্রটি নির্মিত হয়। গরীব কৃষক এবং ধনী ব্যবসায়ীর মধ্যকার টানাপড়েন এই চলচ্চিত্রের উপজীব্য। এতে ভারতের বর্তমান কৃষক শ্রেণীর দুর্দশার চিত্র ফুটে উঠেছে। ‘ভিলাম্বল’ নির্মাতার প্রথম চলচ্চিত্র। তিনি জানান, এক মিনিট ব্যাপ্তির এই চলচ্চিত্রটি মাত্র পাঁচশত ভারতীয় রুপি খরচায় নির্মাণ করেছেন তিনি। এবারের উৎসবে বিশ্বের ৩৫টি দেশের সর্বমোট ১১৬টি চলচ্চিত্রের মধ্য থেকে বাছাই করা হয় ২০টি মোবাইল চলচ্চিত্র। সেখান থেকে ৫টি চলচ্চিত্র অনুষ্ঠানের প্রতিযোগিতা বিভাগে প্রদর্শিত হয় এবং এর মধ্য থেকেই ‘ভিলাম্বল’ বিজয়ী হিসেবে ঘোষিত হয়।

প্রতিযোগিতা বিভাগে প্রদর্শিত চলচ্চিত্রের মধ্যে বিজয়ী চলচ্চিত্র ‘ভিলাম্বল’ ছাড়াও অন্য চলচ্চিত্রগুলো হলো কসোভোর কুস্তরিম আস্লানি পরিচালিত ‘দ্যা গারবেজ’, আফগানিস্তানের জাবিহুল্লাহ শাহরানি পরিচালিত ‘জুলিয়া টু’, বাংলাদেশের যুক্ত ফুয়াদ পরিচালিত ‘ইজ ইট গুড টু রান অ্যাওয়ে’ এবং মোঃ আল হাসিব খান পরিচালিত ‘দ্যা বার্নিং ক্যানভাস’। শনিবার আয়োজিত উৎসবের সমাপনী অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন সরকারি কর্ম কমিশনের অতিরিক্ত সচিব মোঃ মনজুরুর রহমান। এছাড়াও বিচারক মণ্ডলীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নির্মাতা মতিন রহমান ও প্রসূন রহমান এবং লেখক-চলচ্চিত্র সমালোচক বিধান রিবেরু। উৎসব আয়োজকরা জানান, পরবর্তী বছরের উৎসবে চলচ্চিত্র জমা নেওয়া শুরু হবে চলতি বছরের ১ এপ্রিল থেকে ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত। চার বছর ধরে চলে আসা ঢাকা আন্তর্জাতিক মোবাইল চলচ্চিত্র উৎসব (ডিআইএমএফএফ) বাংলাদেশের প্রথম আয়োজন হিসেবে পরিচিত। এ উৎসবের অনলাইন নিউজ পার্টনার হিসেবে ছিল বাংলা ট্রিবিউন।

সূত্র:banglatribune.com

New Medium of Filmmaking Mobile Films

May 04, 2018
Priyanka Chowdhury
Film reels, heavy camera and the silver screen are now being challenged by the new buzz in the world of cinema. It is time that we recognise and get used to the silicon screen. Mobile phones are now being designed in ways which are ideal for any filmmaker to capture the desired visual instantly. Filmmaking is no more a sophist's game, and there is no excuse for filmmakers anymore.

If you thought mobile phones were only good for calling and browsing, then you might be wrong. Pocket films are gaining popularity worldwide. Since the screenings of these films are generally online or festival based, the opportunity is open for all. In case of Bangladesh, the opportunity was recognised and implemented by Mohammad Shazzad Hossain, a full-time faculty and the advisor of CinemaScope (a film apprenticeship programme) of the University of Liberal Arts Bangladesh. Leading a bunch of budding filmmakers is often a challenge, but, he has been handling the task for over 5 years now.

CinemaScope Mobile Film Competition was Shazzad Hossain's brain child, which he spread among the students. With about 30 apprentices, CinemaScope now stands as the pioneer of hosting international inter-university mobile film competition in Bangladesh. They call it DIMFF (Dhaka International Mobile Film Festival). The response from all over the world has been quite humbling. Over 115 mobile films from 35 different countries participated in this festival. The competition category of the festival was won by young filmmaker Senthamizhan Arunachalam Manjula from India for his debut film 'Vilambal'. In the previous year, the winning title was received by Arif Arman Badol from Bangladesh for his debut film “Chit no Vicche Ikko Din”.

Mobile films have created a unique genre. It would be unfair to think that it is only the amateur or debutant filmmakers who are attracted to this genre. Many professional filmmakers are also opting to grab the opportunity and enter the festivals. It is not to say that, filmmaking is now easy, it is only to make a point that the arrangement that was needed before with heavy cameras and expensive gadgets are now being reduced to just a cell phone. Since Bangladesh has already started the voyage, let us hope the journey takes the country's name to different global stages.

সিনেমা খাই, সিনেমা পড়ি, সিনেমায় ঘুমাই!

‘আমরা সিনেমা খাই, সিনেমা পড়ি, সিনেমায় ঘুমাই!’ ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশের (ইউল্যাব) যে শিক্ষার্থীদের মূলমন্ত্র এটা—তারাই সিনেমাস্কোপের সদস্য। ক্লাসে কিংবা চায়ের আড্ডায়, লাইব্রেরিতে বসে পড়ার সময় কিংবা ফেসবুক মেসেঞ্জারের আলাপে; এই তরুণদের সবকিছুতেই ঘুরেফিরে প্রাধান্য পায় সিনেমা। তাঁদের আড্ডায় কান পাতলে আপনি শুনতে পাবেন তারেক মাসুদ থেকে তারকোভস্কি, সত্যজিৎ রায় থেকে স্টিভেন স্পিলবার্গের নাম।

শুরুটা হয়েছিল ২০১১ সালে। বিশ্ববিদ্যালয়ের মিডিয়া স্টাডিজ অ্যান্ড জার্নালিজম (এমএসজে) বিভাগের উদ্যোগে এক দল শিক্ষার্থী সিনেমা নিয়ে ‘একটা কিছু’ করার স্বপ্ন দেখেছিল। সিনেমাস্কোপের শুরুর দিকের একজন প্রধান নির্বাহী জাহিদ গগন বলছিলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের একটা ফিল্ম ক্লাবে যে ধরনের কার্যক্রম হয়, আমরা তার চেয়ে একটু বেশি কিছু চেয়েছিলাম। সেই চিন্তা থেকেই আমাদের শিক্ষক মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন একটা ফিল্ম অ্যাপ্রেনটিস প্রোগ্রাম চালু করেন। পরে যখন আমাদের কার্যক্রমে এমএসজের বাইরের ছেলেমেয়েরাও যোগ দিতে শুরু করল, তখন আমাদের নাম হলো সিনেমাস্কোপ।’ এখন নানা বিভাগের ছাত্রছাত্রীদের অংশগ্রহণ মিলিয়ে এই সংগঠনের (কিংবা সংগঠনের চেয়ে একটু বেশি কিছু!) সদস্য সংখ্যা ৪১ জন। একেকজন একেক স্বপ্ন কিংবা লক্ষ্য নিয়ে এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে একজন, কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের শিক্ষার্থী তামান্না বাশারের বক্তব্যটা শোনা যাক। ‘আমি আসলে সিনেমার পেছনের কাজগুলো সম্পর্কে জানতে চেয়েছিলাম। সিনেমা আরও ভালোভাবে বোঝার জন্য, এর নান্দনিক দিকগুলো উপলব্ধি করার জন্যই সিনেমাস্কোপে এসেছি।’ অন্যদিকে এমএসজে বিভাগের ফয়সাল মাহমুদ সিনেমাস্কোপের সদস্য হয়েছেন সিনেমার কারিগরি দিকগুলো শেখার জন্য। সে সুযোগ অবশ্য নিয়মিত হচ্ছে। চলচ্চিত্র প্রদর্শনী, কর্মশালা, সাময়িকীর প্রকাশনা এবং চলচ্চিত্র নির্মান—এই চার বিভাগে পরিচালিত হয় তাদের কার্যক্রম।

প্রতি সেমিষ্টারেই সিনেমাস্কোপের সদস্যরা একটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র তৈরি করেন। সিনেপিডিয়া নামে একটি সিনেমা বিষয়ক সাময়িকী প্রকাশ করেন তারা। এ ছাড়াও চলচ্চিত্র বিষয়ক আলোচনা, কর্মশালা এবং বিভিন্ন আয়োজন তো থাকেই। দেশের গুণি চলচ্চিত্র নির্মাতা, চিত্রনাট্যকার, চিত্রগ্রাহকেরা নিয়মিতই বিভিন্ন কর্মশালা পরিচালনা করেন। এই তো কিছুদিন আগেও অভিনয়ের ওপর একটি কর্মশালা পরিচালনা করেছেন অভিনয়শিল্পী আফসানা মিমি। সিনেমাস্কোপের বর্তমান প্রধান নির্বাহী শ্রাবন্তি সুচন্দ্রিমার কাছ থেকে জানা গেল, এ বছরের শুরুর দিকে সিনেমাস্কোপ আয়োজন করেছিল ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল। যেখানে বিশ্বের প্রায় ৩৫ টি দেশের এক শ’টিরও বেশি সিনেমার অংশগ্রহন ছিল। সিনেমাস্কোপ বর্তমানে ‘রায়হান’ নামের একটি ছবি নির্মানের কাজ করছে। জাহিদ গগন জানালেন, শিগগিরই তাঁদের ‘সিনেস্কুল’ নামে একটি ওয়েবসাইট খোলারও ইচ্ছে আছে। সিনেমাস্কোপ নিয়ে বেশ কিছুক্ষণ আড্ডার পরে যখন ইউল্যাবের ক্যাম্পাস থেকে বিদায় নিচ্ছি, শ্রাবন্তি সুচন্দ্রিমা হাতে ধরিয়ে দিলেন সিনেপিডিয়ার দুটি কপি। দু’একটা পৃষ্ঠা উল্টে পাল্টে মনে হলো, সত্যিই এরা সিনেমা খায়, সিনেমা পড়ে, সিনেমায় ঘুমায়!

কিশোর আলোর সাথে ডিআইএমএফএফের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল ফিল্ম ফেস্টিভাল’ ও জাতীয় দৈনিক প্রথম আলোর সাপ্তাহিকী কিশোর আলো পত্রিকার একটি আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার (২৭জুলাই) রাজধানীর কারওয়ান বাজারে প্রথম আলো’র কার্যালয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আলোচনার লক্ষ্য ছিল স্কুল ও কলেজ শিক্ষার্থীদের চলচ্চিত্র নির্মাণের জন্য উদ্বুদ্ধ করা। আগ্রহী শিক্ষার্থীদের কাছে ডিআইএমএফএফ এর উদ্দেশ্য পৌঁছে দেওয়া। এছাড়াও, ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশ (ইউল্যাব) এর শিক্ষানবিশ প্রোগ্রাম ‘সিনেমাস্কোপ’ এর আয়োজনে পঞ্চমবারের মত অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া “ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল ফিল্ম ফেস্টিভাল ২০১৯” এর বিস্তারিত তুলে ধরা। নির্মাতারা এই বছর থেকে মোট যে তিনটি বিভাগে তাদের শর্টফিল্ম গুলো জমা দিতে পারবেন, সেগুলো হল- ১।প্রদর্শনী বিভাগ (সকলের জন্য উন্মুক্ত) ২।প্রতিযোগিতা বিভাগ (শুধুমাত্র বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের জন্য) ৩।১ মিনিট দৈর্ঘ্যের ফিল্ম (প্রথম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য), যা এই বছর প্রথমবারের মত সংযোজন করা হয়েছে।

ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল ফিল্ম ফেস্টিভাল ২০১৯ এর আসর বসছে আগামী বছরের ১৫-১৬ ফেব্রুয়ারী। আগ্রহী নির্মাতাদের মোবাইল ফোনের ক্যামেরায় ধারণ করা শর্টফিল্ম গুলো জমা দেওয়ার শেষ সময় আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮। কিশোর আলোর ‘ফিল্ম ও ফটোগ্রাফি ক্লাব’ ও ডিআইএমএফএফের উদ্যোক্তা বৃন্দ এবং ফিল্ম ও ফটোগ্রাফি নিয়ে আগ্রহী বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষ এ সভায় উপস্থিত ছিলেন।



সূত্র:e-barta247.com

Dhaka International Mobile Film Festival launches its website

ULAB VC Professor Dr HM Jahirul Haque giving a speech after inaugurates the newly launched website of Dhaka International Mobile Film Festival (DIMFF). The Dhaka International Mobile Film Festival (DIMFF), Bangladesh’s maiden mobile film fiesta, has launched its official website on July 26. Professor Dr HM Jahirul Haque, Vice Chancellor of University of Liberal Arts Bangladesh (ULAB), inaugurated the website (www.dimff.net) at a ceremony at ULAB.

DIMFF is the country’s first ever mobile film festival which was formerly known as CinemaScope Mobile Film Competition. CinemaScope, a film apprenticeship programme of Media Studies and Journalism department at ULAB, has organised the festival for four times. The fifth edition of the festival will take place on 15-16 February 2019. Submission of films is now open, and deadline of the film submission is September 16 this year. Films can be submitted into three different categories — screening category, which is open for all; competition category, which is only for university students; and 1-minute film, which is introduced first time this year only for students ranging from grade 1 to 12. The newly-launched website will help filmmakers get any kind of information regarding the festival. They can even submit their works through the website.

ULAB VC Professor Dr HM Jahirul Haque inaugurates the newly launched website of Dhaka International Mobile Film Festival (DIMFF). MSJ faculty member Mohammad Shazzad Hossain looks on. Members of DIMFF executive committee said they had long been thinking about building a website for the festival taking into consideration the competition’s growing popularity among participants both at home and abroad. Cinemascope adviser Mohammad Shazzad Hossain, also an assistant professor of MSJ, and members of different clubs and apprenticeship programmes at ULAB, were present at the launching ceremony. For further details, the organisers requested the aspiring filmmakers to email them at zedneahsan@gmail.com or visit their Facebook page: www.facebook.com/ULABCinemaScope.

Festival Director Asif Uddin giving a speech after inaugurates the newly launched website of Dhaka International Mobile Film Festival (DIMFF).

Source: www.ulab.edu.bd

Dhaka International Mobile Film Festival team meets Kishor Alo

With an aim to connect local community, a team of the Dhaka International Mobile Film Festival (DIMFF) met members of Kishor Alo — a supplement of the daily Prothom Alo for juveniles — at the daily’s office in Dhaka on July 27. The main objective of the session was to encourage the school- and college-going film enthusiasts to submit films under the school/college category of DIMFF 2019. The official website of DIMFF, which was launched lately, was introduced to the members of Kishor Alo. The festival director along with the executives spoke about the procedure for submission. Young filmmakers can now submit their works through the website.

DIMFF is the country’s first ever mobile film festival that was formerly known as Cinemascope Mobile Film Competition. Cinemascope, a film apprenticeship program of ULAB, is organizing the festival for the fifth time. Submission of films is now open and the deadline for film submission is September 16. Films can be submitted into three different categories — screening category, which is open for all; competition category, which is only for university students; and 1-minute film, which is introduced first time this year only for grade 1-12 students. DIMFF 2019 will take place on February 15-16, 2019.

For details, the organizers asked the participants to email at zedneahsan@gmail.com or visit the Facebook page: www.facebook.com/ULABCinemaScope.

Source: www.ulab.edu.bd